ঈদের ছুটিতে যেতে পারেন পানির রাজ্য, কেরালার আলেপ্পিতে

0
151

দু’দিকে নারকেল গাছের বন। মাঝেমধ্যে ফাঁক-ফোকর দিয়ে দেখা যাচ্ছে বাড়ি। সেই সব বাড়ির সামনে বাঁধা আছে ছোট্ট ডিঙি নৌকা। বাজার-হাট হোক বা চায়ের দোকান যেকোনো জায়গায় যেতে হলে ডিঙি নৌকাই ভরসা।

কেরালার আলেপ্পিকে কেনো প্রাচ্যের ভেনিস বলা হয় তা আলেপ্পির ব্যাক ওয়াটারে শিকারা বা হাউসবোটে ভাসতে ভাসতে অনুভব করা যায়। আলেপ্পি এমন একটি সমুদ্র শহর, যার রয়েছে বিশাল ব্যাকওয়াটার আবার সমুদ্রতটও।

থেক্কাডি থেকে সকাল সকাল ব্রেকফাস্ট করে আলেপ্পির উদ্দেশে বেরিয়ে পড়ুন। আলেপ্পি দুপুরের মধ্যে পৌঁছে গেলে হোটেলে বা হাউসবোটে উঠে শিকারা (খোলা বড় নৌকা)নিয়ে বেরিয়ে পড়ুন ব্যাকওয়াটার ভ্রমণে।

আলেপ্পির ব্যাকওয়াটারে দু’ভাবে ঘোরা যায়। শিকারা অথবা হাউসবোটে। হাউসবোটে ঘোরার খরচ শিকারার দ্বিগুণ। তবে শিকারাগুলিও অনেক বড়। দশ থেকে বারো জনের একটি দলের একটা শিকারাতেই হয়ে যাবে। ন্যূনতম তিন ঘণ্টার জন্য শিকারা ভাড়া পাওয়া যায় ২৫০০ থেকে ৩০০০ টাকার মধ্যে। দরদাম করতে পারলে ২০০০ টাকাতেও পাবেন।

এ রকম এক শিকারায় জলপথে ঘুরতে ঘুরতে দেখতে পাবেন ব্যাকওয়াটারের ধারে একটি বাড়িতে এক গৃহবধু নিজে নৌকা চালিয়ে বাজার করতে যাচ্ছেন। এমন কি সেখানকার দশ বছরের ছেলেও দারুণ নৌকা বাইতে পারে। বাচ্চাদের সাইকেল শেখানোর আগে এখানে নৌকা চালানো শেখানো হয়। নৌকা না চালাতে জানলে সত্যিই দৈনন্দিন কাজ করা খুবই কঠিন।

ব্যাকওয়াটার কোথাও বিশাল চওড়া আবার কোথাও আবার সরু খালের মতো। মাঝেমধ্যে মনে হবে এ যেন গলির রাস্তা দিয়ে যাওয়া। শুধু পিচের রাস্তার বদলে রয়েছে জলপথ। এ রকমই ব্যাকওয়াটারে ইতিউতি ঘুরতে ঘুরতে আপনার শিকারা নোঙর ফেলবে কোনো ছোট্ট রেস্তোরাঁর সামনে। ওই রেস্তোরাঁয় আপনি দুপুরের খাওয়া সেরে নিতে পারবেন। আর তা না চাইলে কেরালার বিশেষ মাছ ভাজা তো আছেই।

মাছভাজা খেয়ে ফের শিকারায় উঠে ঘুরে বেড়ান। আপনি যেদিকে শিকারা নিয়ে যেতে বলবেন শিকারা সে দিকেই যাবে। যেতে যেতে দেখবেন, নানা ধরনের হাউসবোট ভাসছে। হাউসবোটে থাকলে সেখানেই খাওয়ার ব্যবস্থা আছে। হাউসবোটের ব্যালকনিতে বসে এই জলপথের দৃশ্য উপভোগ করা যায়।

তবে ব্যাকওয়াটারে ঘুরতে ঘুরতে কিন্তু আলেপ্পির সমুদ্রতটে যেতে ভুলে যাবেন না। বিকেলে আলেপ্পির সমুদ্রতটে সূর্যাস্ত দেখতে যান। আলেপ্পিতে হোটেল বা হোম স্টে ছাড়াও রয়েছে প্রচুর হাউসবোট। তবে হাউসবোটে ওঠার আগে হাউসবোটের মান কেমন তা ভাল করে পরীক্ষা করে নিন। অপেক্ষাকৃত কম দামের হাউসবোটের পরিকাঠামো নিয়ে নানা অভিযোগও ওঠে।

আলেপ্পিতে এক রাত কাটিয়ে পরের দিন সোজা চলে যান কোভালাম। সমুদ্রের পাড় দিয়ে ঘণ্টা চারেকের পথে টুক করে দেখে নিন ভারখালা বিচ। এখানে থাকাও যায়। অসাধারণ এই বিচটি কার্যত বিদেশিদের দখলে। এখানে সমুদ্রের জলের রং দেখলে আপনি মোহিত হয়ে যাবেন।

ভারখালা বিচ দেখে সোজা চলে যান কোভালাম। কোভালাম যাওয়ার পথেই পড়বে তিরুঅনন্তপুরম। তিরুঅনন্তপুরম থেকে ১৮ কিলোমিটার দূরেই কোভালাম। তাই কোভালামে যাওয়ার আগে তিরুঅনন্তপুরম শহর ঘুরে নিতে পারেন।

তিরুঅনন্তপুরম গেলে অবশ্যই পদ্মনাভ মন্দির দর্শন করুন। তবে এই মন্দিরে প্যান্ট বা সোলায়ার কামিজ পরে ঢোকা যায় না। মন্দিরের সামনেই ধুতি ভাড়া পাওয়া যায়। ছেলেদের প্যান্ট ছেড়ে ধুতি পরতে হবে। মেয়েদের সালোয়ার কামিজ বা জিনস পরা থাকলে সালোয়ার বা জিনসের উপরে ধুতি জড়িয়ে নিলেই হবে। ধুতির দাম মাত্র ৬০ টাকা। ধুতি যেখান থেকে কিনবেন সেখানেই মোবাইল ফোন, চটি— সব জমা রাখা যায়। তবে এত কিছু কাণ্ড করে মন্দিরে ঢোকা কিন্তু বিফলে যাবে না। মন্দিরের কারুকার্য আর বিগ্রহ আপনাকে মুগ্ধ করবে। এই মন্দিরের প্রসাদও বেশ অভিনব।

যেভাবে যাবেন:

যদি কলকাতা হয়ে যান তাহলে বর্ধমান থেকে কলকাতা এসে শালিমার থেকে তিরুঅনন্তপুরম এক্সপ্রেস বা হাওড়া থেকে গুয়াহাটি-তিরুঅনন্তপুরম এক্সপ্রেসে চেপে কোচি চলে আসুন। তিরুঅনন্তপুরম থেকেও ঘোরা শুরু করতে পারেন।

যেখানে থাকবেন: কোচি থেকে শুরু করে কন্যাকুমারী পর্যন্ত বিভিন্ন মানের হোটেল রয়েছে। আলেপ্পিতে হোটেল বাদেও রয়েছে হাউসবোট। রয়েছে কম দামের হোম-সেট। যেখানেই থাকুন না কেন, আগে থেকে বুকিং করা ভালো। তা হলে কিছুটা কম দামে ভাল ঘর পাওয়া যায়।

কেরল ভ্রমণের জন্য আগে থেকে পরিকল্পনা করুন। মুন্নার, থেক্কাডি বাদে শীতে কেরলে কোথাও ঠাণ্ডা সেভাবে বুঝা যায় না। কোভালাম, আলেপ্পি, কন্যাকুমারীতে ডিসেম্বরেও রীতিমতো গরম লাগে। তাই নভেম্বর থেকে শুরু করে ফেব্রুয়ারি, বড় জোর মার্চ পর্যন্তই কেরল ভ্রমণের সেরা সময়। অনেকে অবশ্য বর্ষায় কেরলের রূপও দেখতে যান। ল

বিঃদ্রঃ- লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন। আপডেট সব খবরা- খবর ও অসাধারণ সব টিপস পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক এবং গ্রুপে জয়েন করে একটিভ থাকুন।

আপনার মন্তব্য লিখুন…

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here